সুমনের শারীরিক অবস্থা আগের চেয়ে বেশি খারাপ। তার স্পাইনাল কর্ডের ব্যথা অনেক বেড়েছে। যন্ত্রণায় কাতর হচ্ছেন প্রতিদিনই। জরুরি ভিত্তিতে চিকিৎসা দরকার, কিন্ত করোনার কারণে মিলছে না জার্মানীর ভিসা...

তিনি ক্যান্সার জয় করে ফিরেছেন একাধিকবার, মারাত্মক সড়ক দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন, পাকস্থলীর বড় একটা অংশ কেটে ফেলা হয়েছে তার- এতসব প্রতিকূলতা মোকাবিলা করেও হার না মানা মানসিক জোরকে সঙ্গী করে এখনও দিব্যি বেঁচে আছেন তিনি, সেইসঙ্গে বেঁচে থাকতে উদ্বুদ্ধ করছেন হাজারো ভক্ত-অনুরাগীকে। তিনি অর্থহীনের সুমন, আমাদের বেজবাবা সুমন। যে মানুষটার মারাত্মক প্রাণশক্তি আমাদের অনুপ্রেরণা যোগায়, টিকে থাকার সাহস দেয়। 

কিন্ত কয়েকদিন ধরেই সুমনের শারীরিক অবস্থা সংকটাপন্ন। গত বছর এই গায়কের চিকিৎসার জন্য জার্মানি যাওয়ার কথা ছিল। করোনায় আটকে গেছে যাত্রা, মিলছে না ভিসা। বর্তমানে ভিসা জটিলতার কারণে আটকে আছে উন্নত চিকিৎসা। এদিকে দিন দিন তার অসুস্থতা বাড়ছে। সুমনের শারীরিক অবস্থা আগের চেয়ে বেশি খারাপ। তার স্পাইনাল কর্ডের ব্যথা অনেক বেড়েছে। যন্ত্রণায় কাতর হচ্ছেন প্রায়ই। জরুরি ভিত্তিতে এটার চিকিৎসা দরকার। যে কারণে চেষ্টা করা হচ্ছে তাকে দ্রুত জার্মানিতে নিয়ে যাওয়ার।

সুমনের শারীরিক এই সমস্যার চিকিৎসা হয় জার্মানিতে। তার জন্য পরিবারের অন্যরা ভেঙে পড়েছেন, চিন্তা করছেন। আপাতত দেশের কয়েকজন ডাক্তারের পরামর্শে তার চিকিৎসা চলছে। অসুস্থতা নিয়েই বাসায় টিভি দেখেন সুমন। মাঝেমধ্যে চেষ্টা করেন ভিডিও গেম খেলার। কিন্তু বেশি সময় বসে থাকতে পারেন না। শুয়ে বিশ্রাম নেন। চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ী খুবই কম খাবার খেতে হয় তাকে। 

বেজবাবা সুমন

সুমনের শরীরে দুটি টিউমারের অস্তিত্ব পাওয়া গিয়েছিল বেশ কয়েক বছর আগে। বিভিন্ন পরীক্ষা-নীরিক্ষার পর চিকিৎসকেরা নিশ্চিত হন যে, সুমন ক্যানসারে আক্রান্ত। ক্যান্সার তখন ফার্স্ট স্টেজে, সময়মতো রোগ ধরা পড়ায় চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হয়ে ওঠেন সুমন। কিন্ত ক্যান্সার তার শরীরে ফিরে আসে আবারও। এরইমধ্যে ক্যান্সারের চিকিৎসা নিতে গিয়ে সুমন শিকার হন ভয়াবহ এই সড়ক দুর্ঘটনার, প্রায় ১১ ঘণ্টা ধরে ৯টি সার্জারি করা হয়। ব্যাংককের ওই দুর্ঘটনায় সুমনের স্পাইনাল কর্ডের ক্ষতি হয়। সেই থেকেউ মেরুদণ্ডের ব্যথাটা সুমনের সঙ্গী, এই সমস্যাতেই আপাতত জেরবার তিনি। 

একসময় কনসার্টের মঞ্চ মাতিয়ে রাখা, অডিও মার্কেটে হইচই ফেলে দেয়া বেজবাবা সুমন গানে অনিয়মিত অনেকদিন ধরেই। সবশেষ ঊনপঞ্চাশ বাতাস সিনেমায় 'প্রথম' শিরোনামের একটা গান গেয়েছিলেন, সেটাও প্রায় বছর দুয়েক আগে রেকর্ড করা। এরপর গান থেকে মোটামুটি দূরেই আছেন। গাইবো না, এপিটাফ, অদ্ভুত সেই ছেলেটি- ইত্যাদি গান দিয়ে যিনি আমাদের মনে চিরস্থায়ী আসন গেঁড়ে বসেছেন, সেই বেজবাবা সুমন সব অসুস্থতাকে হারিয়ে আবার গিটারে ঝংকার তুলবেন, তার গায়কীতে মুগ্ধ করবেন, এটাই আমাদের কামনা। 


শেয়ারঃ


এই বিভাগের আরও লেখা